Breaking News

Best Bengali Love Quotes for Boys and Girls | Romantic Love Quotes, Sayeri and Whatsaap, Facebook Status.

Best Bengali Romantic Love Quotes Sayeri with Best Love Story and Whatsaap, Facebook Status for Boys and Girls 

quotes,love quotes,bangla quotes,romantic,bangla romantic quotes,romantic quotes,bengali quotes,bengali romantic quotes,bengali romantic quotes - adho diary,bangla romantic,heart touching love quotes,love quotes in bengali,bengali love story,rabindra quotes in bengali romantic,bengali romantic,bangla romantic quotes video,best quotes in bengali,the romantic quotes bangla,bengali love quotes

Best Bengali Romantic Love Quotes and Status: 


Valobese korini kono vul
Tomay dibo ajke golap ful
Fuler moto sundor tomar oi mon
Agle rakhbo ami sarakkhon


Ase chilam onek asa niye
Firbo anek valobasa niye
Abar fire asbo tomar kache
thakbo sarajibon tomar pase pase


Aktu kachhe asbo, aktu pase bosbo
tomar chokhe chok rakhbo
Avabei sarakkhon tomar dike takiye thakbo
ar aktu ador kore tomake valobasbo


Olpo olpo megh theke halka halka bristi hoy
choto choto golpo theke valolagar sristi hoy,
fota fota jol theke moha sagor sristi hoy,
akta akta bali theke moruvumi sristi hoy




Bangla Premer Golpo Best Romantic Love Story in bengali:

রিয়া??
-বলো!
-চুপ করে আছো যে?
এই কথা বলে হাত ধরতে চায় সুমন। এক ঝটকায় হাতটা সরিয়ে দেয় রিয়া। শেষ বিকেলের সোনারঙা আলো ওর চোখেমুখে এসে পড়ছে। তাতে ওর চুলগুলো কেমন জ্বলজ্বল করছে। ফর্সা গালদুটো লাল হয়ে আছে। রাগে। খুব রাগ করেছে ও। এবং যথারীতি সুমন তার রাগ ভাঙাতে হিমশিম খাচ্ছে। 
-আমি কি করলাম রিয়া?
-সারাদিন কোন রাজকার্য করছিলে যে একটু খোঁজ নেয়া গেল না?  
সুমন চুপ হয়ে যায়। আজ দিনটা খুব ব্যস্ততার মাঝে গেছে। সকালে বাজার করা,দুপুরে টিউশনি করানো,কোচিংয়ে যাওয়া- সব মিলিয়ে অনেক ব্যস্ততা ছিল। এর মাঝে রিয়াকে ফোন দেয়ার সময়ই পায়নি সে।   
-আজ সত্যিই অনেক ব্যস্ত ছিলাম। জানোই তো আমার রুটিন।
-হ্যাঁ জানবো না কেন? তোমার রুটিনে তো সবই থাকবে কেবল আমিই নেই।
-এটা কি বললা??? 
-ঠিকই বলেছি। এই বলে ভেংচি কেটে অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে রাখে ও। সুমনর প্রচন্ড খারাপ লাগতে থাকে। অভিমানী মেয়েটা কি বোঝেনা যে ওর ছোট্ট মনে কেবল রিয়ারই পায়েল পড়া পায়ের আনাগোনা, কেবল রিয়ারই মায়াময় ঐ মুখ। ছোট্ট এক ফুলওয়ালী এগিয়ে আসে।


ভালোবাসার মর্ম সবাই বোঝে না:

গরিব পরিবারের একটি ছেলের সাথে একই গ্রামের একটি গরিব মেয়ের বিয়ে হয়! ছেলেটার বয়স ২১ বছরের মত, আর মেয়েটার বয়স ১৬ বছর! বিয়ের পর ছেলেটা মেয়েটিকে বললেন, তোমার কি কোন ইচ্ছে আছে?
.
মেয়েটা বলল, আমার ইন্জিনিয়ার হওয়ার বড় আশা ছিল!
এরপর ছেলেটা মেয়েটাকে নিয়ে কোলকাতায় চলে আসে। মেয়েটিকে উনিভার্সিটিতে ভর্তি করিয়ে লেখাপড়া করায়। ছেলেটা ভোর ৪ টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পরিশ্রম করে। মেয়েটার লেখাপড়ার খরচ আর সংসার খরচ চালায়।
অনেকদিন হওয়ার পরও তাদের মধ্যে কোন স্বামী স্ত্রীর শারীরিক সম্পর্ক হয় না!
মেয়েটার বন্ধু বান্ধব প্রশ্ন করে ছেলেটা কে? মেয়েটা উত্তর দেয়,সে আমার ভাই!
ছেলেটা কখনো রিক্সা চালায়, কখনো দিন মজুরি করে, কখনো ইট ভাটায় কাজ করে, আবার
কখনো কুলির কাজ করে। নিজের কথা না ভেবে তার জন্য টাকা রোজগার করে মেয়েটাকে ইন্জিনিয়ার বানানো জন্য!
হঠাৎ পরীক্ষা চলে আসলো! মেয়েটার ও ছেলেটার কারও চোখে ঘুম নেই। ছেলেটা
রাত দিন মিলে ২০ ঘন্টা কাজ কর্ম করে। বাকি ৪ ঘন্টা সংসারের সব কাজ রান্না থেকে শুরু করে সব কাজ করে তারপর একটু রেষ্ট নেয়। এভাবে মেয়েটার পরীক্ষা শেষ হয়ে গেল!
এরপর ছেলেটা একটু কাজ কমায়। পরীক্ষার ফলাফলে মেয়েটা পাশ করলো! ভাল জায়গায় চাকরি পেল, অনেক টাকা পয়সা মালিক হলো। বড় বাড়ি, গাড়ি আর অনেক কিছু হলো মেয়েটার।
বিভিন্ন জায়গায় থেকে মেয়েটিকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। কেউ জানে না, তার বিয়ে হয়ছে কিনা?
বা তার স্বামী কে?
মেয়েটা বড় বাড়ি লাইটিং করে, বড় পার্টি দিয়েছে। কিন্তু কেউ জানে না কি জন্য এ পার্টির অয়োজন। 
সবার একই প্রশ্ন এ কিসের পার্টি। সবাই মিলে মেয়েটিকে প্রশ্ন করলো এ পার্টি কি জন্য বলবেন? 
মেয়েটি বলল ১২ টার সময় সবার সামনে বলবো কিসের পার্টি!
ছেলেটা সেই লুঙ্গি গামছা আর ছেড়া একটা জামা গায়ে বাড়ির এক কোনায় দাড়িয়ে আছে! ১২ টা বেজে গেলো, এরপর মেয়েটা ছেলেটার হাত ধরে যেখানে কেক রাখা আছে সেখানে নিয়ে এল!

সেখানে নিয়ে এসে সবাইকে বললেনঃ-
ভদ্র পুরুষ ও মহিলাগন, একে কেউ চিনেন? যার মাথার গাম পায়ে ফেলে, নিজে খেয়ে না খেয়ে আমাকে লেখাপড়া করিয়েছে। তার জীবনের সব সুখ আমার জন্য বিসর্জন দিয়ে। এই আমার স্বামী যার সাথে বিয়ের পরও কোন শারীরিক সম্পর্ক হয় নি আমাদের ! তাকে এই কাপড়ে রেখেছি, যাতে আপনারা তাকে চিনতে পারেন। 
এই বাড়ি, গাড়ি, টাকা, তার গায়ের এক ফোটা ঘামের দামও না!

আমি তার স্ত্রী, আমার যা কিছু আছে তার ১০০ গুন দিলেও আমি আমার স্বামীকে ছেড়ে কোথাও যাবো না।এটাই স্বামী স্ত্রীর ভালবাসা।


No comments